সহীহ আকিদা বিষয়ক সাধারণ জ্ঞান

সহীহ আকীদার ক্ষেত্রে যে সব বিষয়ে মানুষের ভুল ধারণা, সেগুলো কুরআন ও হাদিস দ্বারা পেশ করা হলঃ

1. অনেকে আকীদা পোষণ করে যে আল্লাহ সুবহানুতায়ালা সব জায়গায় বিরাজমান, আসলে কোথায়?

মহান আল্লাহ্‌ সপ্ত আসমানের উপর আরশে আজিমে সমাসীন, আল্লাহ সুবহানুতায়ালা সব জায়গায় বিরাজমান নন, বরং তার জ্ঞান সর্বব্যপী

মূলক-16, 17, হাদীদ-8, সূরা ফাত্বির ১০, সূরা মাআরিজ ৩-৪, সূরা আ’লা ১, সূরা ত্বা-হা ৫, সূরা আল আরাফ ৫৪, সূরা ইউনুস ৩, সূরা আর-রাদ ২, সূরা আল ফুরকান ৫৯, সূরা আস সাজদা ৪। [মুসলিম, অধ্যায়ঃ কিতাবুল মাসাজিদ] [-মুসলিম, অধ্যায়ঃ কিতাবুন নিকাহ]

2. আল্লাহকে কেহ দুনিয়াতে দেখতে পাবে না।
সূরা শুরা-51 আন-আম-103।

3. আল্লাহ নিরাকার নয়,আল্লাহর আকার আছে।
ইমাম আবূ হানিফার, ফিকহুল আকবার পৃঃ ৫৪৮-৫৯,ইবনু আবিল ইজ্জ্ব, মুআসসাতুর রিসালাহ-বাইরুত/২৬৪ পৃঃ
ক. আল্লাহ হাত-সূরা ছোয়াদ-75, মায়েদা-64, যুমার-67, মূলক-01, হাদীদ-29।

খ. আল্লাহর চোখ-সূরা হুদ-37, ত্বহা-39, তুর-48, আন-আম-103, শুরা-11।

গ. আল্লাহর চেহারা- আর রহমান 27, বাকারা-115, কাসাস-88।

ঘ. আল্লাহর পা-সূরা কালাম-42 (বুখারী শরীফ)

তবে আল্লাহ্‌র এসব বৈশিষ্ট্য অবিকৃত ভাবে বিশ্বাস করতে হবে, যেমন আল্লাহ্‌ কোরআনে বলছেন ও হাদিসে আছে তেমন ভাবেই, এসব বৈশিষ্ট্য কোনভাবেই মানুষের মত বা আরও কিছুর মত কল্পনা করা যাবে না।

4. আল্লাহর মত/সমতুল্য কেহ নাই।
সূরা শুরা-11, ইখলাস-4।

5. আল্লাহ ছাড়া অন্য কেহ গায়েব জানে না।
সূরা নামল-65, আন-আম-59, আরাফ-187, 188, সাবা-14, আহযাব-63, ইউনুস-20।

6. আল্লাহকে ডাকতে অন্য কোন মাধ্যম লাগে না।
সূরা ফাতেহা-4, ইউনুস-106, বাকারা-186, আরাফ-180, আনকাবুত-17, মুমিন-60, সাফফাত-75।

7. সকল বিষয়ে ক্ষমতা একমাত্র আল্লাহর।
সূরা বাকারা-109, হুদ-123, ইমরান-26, 165, মায়দাহ-17, 40।

8. একমাত্র ভরসার মালিক আল্লাহ।
সূরা ইব্রাহীম-11, আল-ইমরান-160, তালাক-3, মায়দাহ-

9. আল্লাহই গরীবে নেওয়াজ বা গরীবের সাহায্যকারী, গাউসুল আজম বা বিপদে বড় উদ্ধার কর্তা। আবদুল কাদের জিলানি বা আরও কেউ না। কোন মানুষকে এসব নামে ডাকা শিরক।
সূরা মুহাম্মদ-38, আম্বিয়া-88, ফাতিহা-4, ইব্রাহীম-6, দোহা-8, বনী ইসরাইল-67।

10. সিজদার একমাত্র মালিক আল্লাহ।
সূরা হামিম-37, ফাতেহা-4।

11. পীর বা সূফী অর্থ আল্লাহর কাছে পৌছানোর মাধ্যম, কাশফ অর্থ গায়েব জানা, ফানাফিল্লা অর্থ আল্লাহর সাথে মিশে যাওয়া ইত্যাদী আকীদা কুরআন ও হাদীসের স্পষ্ট বিপরীত ।
সূরা যুমার-3, ইউনুস-40, 106, আনকাবুত-41, নামল-65, শুরা-11, নাজম-23, কাফ-5, আশ-শুরা-213, আহকাফ-5-6।

12. তওবা করলে আল্লাহ সমস্ত গুনাহ মাফ করবেন। (মাধ্যম ছাড়াই)
সূরা যুমার-53, নিসা-110, বাকারা-160, তাওবা-99, ফুরকান-70-71।

13. সুপারিশের মালিক একমাত্র আল্লাহ (পীর, বূযূগ নহে)
সূরা বাকারা-255, মরিয়ম-93-95, আস-সেজদাহ-4, নাবা-38, ইউনুস-03।

14. পীর, অলী, আউলিয়া বা আলেমকে চুড়ান্ত দলীল মানা রব মানার সমান।
সূরা তওবা-31, আরাফ-3।

15. বিচার ফায়সালা বা সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আল্লাহ এবং রাসূল (সঃ) চুড়ান্ত।
সূরা মায়েদা-44, 45, 47, নিসা-59, হাশর-7, নূর-51, 54।

16. ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ধর্ম গ্রহন করা হবে না।
সূরা আল-ইমরান-19, 85।

17. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) নূরের নয়, মাটির তৈরী। (সহীহুল বুখারী-6967)
সূরা হামিম-6, কাহাফ-110, ইমরান-164, তাওবা-128, মারেফুল কোরআন-পৃঃ-80, বনী ইসরাইল-93, 95। (মুসলিম, যুহদ ও রাক্বায়িক্ব অধ্যায়,হা/৫৩৪)

18. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) গায়েব জানে না এবং ফেরেশতারা নহেন, আল্লাহ যা জানান তা জানেন।
সূরা আন-আম-50, 59, আরাফ-55, 187, 188, মুলক-26, সাবা-14, তাওবা-78, 94, 105, আহযাব-63।` সূরা লুক্বমান-৩৪, ইউনুছ, ১০: ২০, হুদ, ১১: ৪৯, নামল, ২৭: ৬৫, নাহল ১৬: ৭৭ (ফতহুল বারী, সপ্তম খন্ড, পৃ.৪৯৭, ইবনে হিশাম, ২য় খন্ড, পৃ. ৩৩৭)

19. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) ইন্তেকাল করেছেন (নবী হায়াতুর নবী বা হাজির-নাযির নহেন)
সূরা যুমার-30, আল-ইমরান-144, আম্বিয়া-34, 35, ইমরান-44, ‍ইউসুফ-102।

20. নবী মোহাম্মাদ (সঃ) কে অনুসরণ করা ফরয।
সূরা আল-ইমরান-32, 132, সূরা তওবা-29, সূরা মুহাম্মদ-33, সূরা আনফাল-1, সূরা হাশর-7, সূরা নিসা-14, 80, সূরা আহযাব-36,71, সূরা জীন-23,

21. নবী মোহাম্মাদ (সঃ)এর সম্মানে দাড়ানো নিষেধ।
সুনানে তিরমিযী-2745, 2755, আবু দাউদ-5231, বায়হাকী-245, আহমাদ, মিশকাত।

22. দুরুদের নামে মিলাদ পড়ে নবী মোহাম্মাদ (সঃ) কে নিয়ে বাড়াবাড়ী করা নিষেধ।
সূরা নিসা-171, সহীহ্ বুখারী, আবূ দাউদ।

23. সাহাবীদের সমালোচনা করা নিষেধ।
সূরা বাইয়্যেনাহ-8, সহীহ্ বুখারী, মুসলিম, তিরমিযী।

24. শবে মেরাজ স্ব-শরীরে হয়েছিল।
সূরা বনী ইসরাইল-1, সহীহ্ বুখারী।

25. ইসলাম পরিপূণ, এতে নতুন কিছু সংযোজন করার নাই।
সূরা মায়েদা-3।

তাই আপনাদের বলছি যাদের আকীদায় এখনো গলদ রয়েছে , এখনো সময় আছে তওবা করেন এবং শুধু মাত্র আল্লাহর ও রাসূল (সাঃ) এর দেখানো পথে ফিরে আসুন।

Share this Post
Scroll to Top