ফাতওয়া দিতে খুব আগ্রহী

ফাতওয়া দিতে খুব আগ্রহী??
———————————————————————————-
ফাতওয়া দিতে পারলে খুব পুলকিত বোধ হয় তাই না? নিম্নের কথা গুলো মনে রাখুন।
ابن مسعود: قال من أفتى الناس في كل ما يستفتونه فهو مجنون.
ইবনু মাসুদ রাঃ বলেন, সব প্রশ্নের যে জাওয়াব দেয় সে পাগল।
وقال أبو ليلى : أدركت عشرين ومائة من الأنصار من أصحاب رسول الله صلى الله عليه وسلم ما منهم من أحد يحدث بحديث إلا ود أن أخاه كفاه إياه
আবু লাইলা বলেন, ১২০ জন রাসুলের (আনসার) সাহাবি পেয়েছি, তাদের সকলকেই দেখেছি কিছু বলার আগে চাইতেন অন্য কেউ যেন বলে দেয়।
وابن سيرين: لأن يموت الرجل جاهلا خير له من أن يقول ما لا يعلم
ইবনু শিরীন বলেন, না জেনে ফাতওয়া দেওয়ার চেয়ে জাহেল হয়ে মরে যাওয়া ভাল।
وقال ابن عيينة : أجسر الناس على الفتيا أقلهم علما.
ইবনু উয়াইনাহ বলেছেন, সব চেয়ে যে কম জানে যে সেই ফাতওয়াতে বেশী দুঃসাহসী।
قال سحنون: أشقى الناس من باع آخرته بدنيا
সাহনুন বলেছেন, সবচ্যে দুর্ভাগ্যবান সেই যে দুনিয়ার জন্যে আখেরাত বিক্রী করে।
وقال سفيان: أعلم الناس بالفتيا أسكتهم عنها، وأجهلهم بها أنطقهم فيها
সুফিয়ান রাঃ বলেন, যে বেশী জ্ঞানী সে চুপ থাকে, যে বড় জাহেল সেই বেশী ফাতওয়া দেয়।
ما يلفظ من قول إلا لديه رقيب عتيد
আল্লাহ বলেন, যা-ই বলা হয় তার সন্নিকটে থাকে এক কঠিন পাহারাদার।
وقال الرسول صلى الله عليه وسلم لمعاذ، يا معاذ كف عنك هذا ( أي لسانك)، قال أفنواخذ بما نتكلم به يا رسول الله؟ قال وهل يكب الناس في النار على مناخر إلا حصائد ألسنتهم
রাসুল সঃ মুয়াজ রাঃ বলেন, মুয়াজ, তুমি সর্বদা এইটা ( মানে তোমার জিহ্বা) নিয়ন্ত্রনে রাখবে। মুয়াজ বললেন কেন? আমরা যা বলি সে জন্যে কি পাকড়াও হয়ে যেতে পারি? রাসুল সঃ বললেন, জানোনা মুয়াজ? মানুষকে নাকের উপর দিয়ে উল্টো করে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হয় এই জিহবার কারনেই।
মিডিয়াতে ফাতওয়া দেওয়ার প্রতিজোগিতা দেখে টিভি খোলা বন্ধ করে দিয়েছি ২ বছর যাবত। ফেজবুকেও একই অবস্থা। আল্লাহ মানুষকে সুমতি দিক এবং হেদায়েত করুক। দুনিয়া লোভী মুফতিদের ফেত্নাহ থেকে মানুষকে হেফাজত করুক। আমীন!!

>>>Collected From Shaykh SK Muzammelul Hoque<<<

Share this Post
Scroll to Top