অনর্থক কথা বলা নিষিদ্ধ

অনর্থক কথা বলা নিষিদ্ধ :
*****************************
অপ্রয়োজনে অধিক কথা বলা বাবাচালতা পরিহার করামুমিনের জন্যযরূরী। কেননা এটা আল্লাহর অসন্তোষেরকারণ।

রাসূল (ছাঃ) বলেছেন,إِنَّ اللهَ حَرَّمَعَلَيْكُمْ عُقُوقَ الأُمَّهَاتِ، وَوَأْدَ الْبَنَاتِ،وَمَنعَ وَهَاتٍ، وَكَرِهَ لَكُمْ قِيلَ وَقَالَ،وَكَثْرَةَ السُّؤَالِ، وَإِضَاعَةَ الْمَالِ-আল্লাহতা‘আলা তোমাদের উপর মাতাদেরঅবাধ্যতা, 
কন্যাদের জীবন্তপ্রোথিতকরণ, কৃপণতা ও ভিক্ষাবৃত্তিহারাম করেছেন। আর তোমাদের জন্যবৃথা তর্ক-বিতর্ক, অধিক জিজ্ঞাসাবাদ ওসম্পদ বিনষ্টকরণ মাকরূহকরেছেন’।[বুখারী হা/১৪৭৭, ৫৯৭৫;মুসলিম হা/৫৯৩; মিশকাত হা/৪৯১৫।]অন্যত্র তিনি বলেন,إِنَّ اللهَ يَرْضَى لَكُمْثَلاَثاً وَيَسْخَطُ لَكُمْ ثَلاَثاً يَرْضَى لَكُمْ أَنْتَعْبُدُوْهُ وَلاَ تُشْرِكُوْا بِهِ شَيْئاً وَأَنْتَعْتَصِمُوْا بِحَبْلِ اللهِ جَمِيْعاً وَلاَ تَفَرَّقُوْاوَأَنْ تُنَاصِحُوْا مَنْ وَلاَّهُ اللهُ أَمْرَكُمْوَيَسْخَطُ لَكُمْ قِيْلَ وَقَالَ وَإِضَاعَةُ الْمَالِوَكَثْرَةُ السُّؤَالِ. ‘নিশ্চয়ই আল্লাহতা‘আলা তোমাদের তিনটি কাজে সন্তুষ্টহন এবং তিনটি কাজে অসন্তুষ্ট হন। যেতিনটি কাজে তিনি সন্তুষ্ট হন তা হল- (১)যখন তোমরা আল্লাহর ইবাদত কর এবংতাঁর সাথে বিন্দুমাত্র শরীক করো না। (২)আল্লাহর বিধানকে সম্মিলিতভাবেদৃঢ়তার সাথে 
অাঁকড়ে ধর আর বিচ্ছিন্নহও না এবং (৩) আল্লাহ যাকে তোমাদেরকাজের নেতা হিসাবে নির্বাচন করেন,তার 
জন্য তোমরা পরস্পরে কল্যাণকামনা কর।আর তোমাদের প্রতিঅসন্তুষ্ট হন যে তিনটি কাজে তা 
হচ্ছে- (১) অপ্রয়োজনীয় কথা বললে (২) সম্পদনষ্ট করলে 
এবং (৩) অনর্থক বেশী প্রশ্নকরলে।[আহমাদ হা/৮৭৮৫; ইবনু হিববানহা/৩৩৮৮।]

 

পরিশেষে বলব, কথা মার্জিত, নম্র ওনিম্নস্বরে বলার 
চেষ্টা করতে হবে। সাথেসাথে অনর্থক ও অপ্রয়োজনীয় কথাপরিত্যাগ 
করতে হবে।আর যার মধ্যেআল্লাহর সন্তুষ্টি আছে এমন কথা বলতেহবে এবং যাতে আল্লাহর অসন্তুষ্টি রয়েছেতা ত্যাগ করতে হবে। আল্লাহআমাদেরকে তাওফীক দান করুন-আমীন!
——————————————–
পোস্টঃ- মোহাম্মাদ আবু হানিফ (দুবাই)

Share this Post
Scroll to Top