দুষ্টুমির ছলেও কাউকে কষ্টে ফেলব না

দুষ্টুমির ছলেও কাউকে কষ্টে ফেলব না

আবু আহমাদ

এক বন্ধু আরেক বন্ধুর সাথে দুষ্টুমি করবেই। এতে দোষের কিছু নেই। কিন্তু আমরা মাঝেমধ্যে এমন ধরনের দুষ্টুমি করি, যার মাধ্যমে মানুষ কষ্ট পায়। দুষ্টুমি করে কাউকে জোরে ঘুষি মেরে দিলাম বা জোরে চিমটি কাটলাম, ফলে সে ব্যাথা পেল। তেমনি কয়েক বন্ধু যুক্তি করে কাউকে এমন ভয় দেখালাম, ভয়ে তার জ্বরই এসে গেল। পড়তে পড়তে কেউ ঘুমাচ্ছে, তো তার সামনে থেকে বই সরিয়ে লুকিয়ে রাখলাম, ফলে সবার সামনে সে লজ্জা পেল বা বিব্রত হল। দুষ্টুমি করে কারো কিছু লুকিয়ে রাখলাম। সে না পেয়ে খুব পেরেশান হল।

তো যে ধরনের দুষ্টুমিতে কেউ কষ্ট পাবে, লজ্জা পাবে বা পেরেশানীতে পড়বে এ ধরনের দুষ্টুমি করব না।

নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, খেলার ছলে (দুষ্টুমি করে) হোক আর সাধারণ অবস্থায় হোক, কেউ যেন (অনুমতি ছাড়া) কারো জিনিস না নেয়। কেউ তার ভায়ের লাঠি নিয়ে থাকলে (বা লুকিয়ে রাখলে) সে যেন তা ফিরিয়ে দেয়। Ñজামে তিরমিযী, হাদীস ২১৬০; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ৫০০৩

তো দুষ্টুমি করে যদি কারো কিছু নিয়েও থাকি দ্রæত তা ফেরৎ দিয়ে দেবো। তার যেন বেশি পেরেশানীতে পড়তে না হয়।

আরেক হাদীসে সাহাবাদের একটি ঘটনা বর্ণিত হয়েছে। একবার তারা রাসূলের সাথে কোথাও যাচ্ছিলেন। (পথিমধ্যে বিশ্রামের সময়) এক ব্যক্তি ঘুমিয়ে পড়ল। একজন তার তীর নিয়ে গেল।  সে ঘুম থেকে উঠে তার তীর নেই দেখে পেরেশান হল। তাকে পেরেশান হতে দেখে সবাই হাসাহাসি করল। নবীজী জিজ্ঞেস করলেন, কী ব্যাপার তোমরা হাসছো কেন? তারা বললেন, তেমন কিছু হয়নি;  (সে ঘুমন্ত অবস্থায়) আমরা তার তীর সরিয়ে রেখেছি, ঘুম থেকে উঠে তা না পেয়ে ভয় পেয়েছে, পেরেশান হয়েছে (তার তীর গেল কোথায়?)

তখন নবীজী বললেন, এভাবে কাউকে ভয় দেওয়া বৈধ নয়। Ñমুসনাদে আহমাদ, হাদীস ২৩০৬৪; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ৪৩৫১

এরকম দুষ্টুমি আমরাও অনেক সময় করে থাকি। তো কাউকে পেরেশান করা যেমন উচিত নয় তেমনি কাউকে নিয়ে হাসাহাসি করা কিংবা লজ্জা দেওয়াও ঠিক নয়।

 

এ ধরনের কাজ যে ঠিক নয় এটা ভালো বুঝে আসবে যদি নিজের সাথে কখনো এমনটি ঘটে থাকে। তো আমি নিজে যেমন তা পসন্দ করি না বা কষ্ট পাই, তেমনি অন্য ভাইও তা পসন্দ করে না এবং কষ্ট পায়। সুতরাং এ কাজ থেকে বিরত থাকব ইনশাআল্লাহ।

Share this Post
Scroll to Top