খানা খাওয়ার সুন্নত সমুহ

খানা খাওয়ার সুন্নত সমুহ:

১/ আমরা শুধু ডান হাত ধোয়েই খেতে বসি। কিন্তু হাদীসে আছে উভয় হাত কব্জি পর্যন্ত ধুতে হবে। (আবু দাউদ -৩৭৬১)

২/ দস্তরখান বিছিয়ে খেতে হবে। কতজন মানি এটা? এটা অবশ্যই করনীয়। (বুখারী -৫৩৮৬)
দস্তরখান বিছানোর ও নিয়ম আছে। যেন তেন ভাবে দস্তরখান বিছালেই হবে না। প্রথমে আল্লাহর নেয়ামতের মুখাপেক্ষী হয়ে বসতে হবে, এরপর দস্তরখান বিছাতে হবে। (বুখারী- ৫৩৮৫ ও ৫৩৯৯) দস্তরখান খুব পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। এর উপর ঝুটা হাড্ডি, কাটা ফেলা যাবে না, পা রাখা যাবে না। (মুসলিম- ২০৩৩)
৩/ খাবার আগে উঁচু স্বরে বিসমিল্লাহ পড়তে হবে। (বুখারী-৫৩৭৬)
৪/ আজ আমরা আধুনিকতা দেখাতে চামচ দিয়ে খাই। কিন্তু হাদীসে আছে ডান হাত দিয়ে খাবার খেতে হবে। (বুখারী৫৩৭৬, মুসলিম- ২০২০)
৫/ একসাথে কয়েকজন খেতে বসলে আগে এমপি মন্ত্রীর প্লেটে খাবার বেড়ে দেই আমরা। কিন্তু হাদীসে আছে বয়সে যিনি বড় ও বুজুর্গ তাকে দিয়েই খানা শুরু করতে হবে। (মুসলিম২০১৭)
৬/ প্লেটের যত্রতত্র স্থান থেকে খাবার খাবে না। এখান থেকে
এক লোকমা, ওখান থেকে এক লোকমা খাবার খাবে না। নিজের সামনে থেকে সুন্দর করে খেতে হবে। (বুখারী ৫৩৭৬)
৭/ ভাত পরে গেলে কি করি? উঠিয়ে খাই তো? খাবার পড়ে গেলে উঠিয়ে খেতে হবে। ময়লায় মাঝে পড়ে গেলে প্রয়োজনে পরিষ্কার করে খেতে হবে।

(মুসলিম ২০৩৩)
৮/ কিছুর মাঝে হেলান দিয়ে বসে খাওয়া যাবে না। (বুখারী৫৩৮৯)
৯/ খাবার সময় খাদ্যের দোষ ধরা যাবে না। (বুখারী৫৪০৯)
১০/ কোন বিয়ের অনুষ্ঠানে কিংবা রেস্টুরেন্টে দেখা যায়, জুতা পড়েই খেতে বসে যায় অনেকে। জুতা পড়ে খাওয়া যাবে না।

(মুস্তাদরাকে হাকেম ৭১২৯)
১১/ রাজকীয় আসনে বসে খাওয়া বাদ দিতে হবে। খাবার সময় তিন ভাবে বসা যায়। এ তিন পদ্ধতি ছাড়া সব পদ্ধতি বাদ দিতে হবে।
ক/ দুই হাটু উঠিয়ে পায়ে ভর করে বসে খেতে হবে। (মুসলিম২০৪৪) অথবা
খ/ এক হাটু উঠিয়ে, অপর হাটু বিছিয়ে খেতে হবে। (শরহুস সুন্নাহ ৩৫৭৭) অথবা
গ/ উভয় হাটু বিছিয়ে নামাজের ন্যায় বসে খেতে হবে। (আবু দাউদ ৩৭৭৩)
তবে অসুস্থতাজনিত কারনে অন্য আসনে বসেও খাওয়া যাবে। (সুরা নুর ৬১)
১২/ খাবার শেষে প্লেট আঙ্গুল দিয়ে ভালোভাবে কেচে খেতে হবে। এতে প্লেট মাগফিরাতের জন্য দোয়া করে। হাতের আঙ্গুল ও চেটে খেতে হবে। প্রথমে মধ্যমা আঙ্গুল এরপর শাহাদাৎ আঙ্গুল এরপর বৃদ্ধা আঙ্গুল চেটে খেতে হবে। (মুসলিম ২০৩৩, তিরমিযী ১৮০৪, তাবারানী আউসাত ১৬৪৯)

১৩/ খাবার শেষেনিচের দোয়া পড়া :
ﺍﻟْﺤَﻤْﺪُ ﻟِﻠَّﻪِ ﺍﻟَّﺬِﻯ ﺃَﻃْﻌَﻤَﻨَﺎ
ﻭَﺳَﻘَﺎﻧَﺎ ﻭَﺟَﻌَﻠَﻨَﺎ ﻣُﺴْﻠِﻤِﻴﻦَ.(আবু দাউদ ৩৮৫০)
১৪/ খাবার শেষে আগে দস্তরখানা উঠিয়ে তারপর নিজে উঠা। (ইবনে মাজাহ ৩২৯৫)
১৫/ দস্তরখানা ও অবশিষ্ট খাবার উঠানোর সময় এই দু‘আ পড়া :
ﺍﻟْﺤَﻤْﺪُ ﻟِﻠَّﻪِ ﺣَﻤْﺪًﺍ ﻛَﺜِﻴﺮًﺍ ﻃَﻴِّﺒًﺎ
ﻣُﺒَﺎﺭَﻛًﺎ ﻓِﻴﻪِ ﻏَﻴْﺮَ ﻣَﻜْﻔِﻰٍّ ﻭَﻻَ
ﻣُﻮَﺩَّﻉٍ ﻭَﻻَ ﻣُﺴْﺘَﻐْﻨًﻰ ﻋَﻨْﻪُ ﺭَﺑَّﻨَﺎ . (বুখারী শরীফ ৫৪৫৮)
১৬/ এক হাতে খেলেও খাবার খেয়ে উভয় হাত ধোতে হবে। (তিরমিযী১৮৪৬)
১৭/ খাবার শেষে শুধু হাত ধোলেই হবে না, কুলি করে মুখ পরিষ্কার করতে হবে। (বুখারী শরীফ ৫৪৫৫)

Share this Post
Scroll to Top