আইসিস সালাফি নয়!

আইসিস সালাফি নয়!

মূলঃ শাইখ মাশহুর হাসান আল সালমান

অনুবাদকঃ আবু হাযম মুহাম্মাদ সাকিব চৌধুরী বিন শামস আদ দীন আশ শাতকানী

 

প্রশ্নঃ কিছু লোকেরা বলছে আইসিস সালাফি দাওয়াতের ফলাফল। এটা কি সত্য?

উত্তরঃ আমি জানি না কোন দেশ থেকে এই প্রশ্ন এসেছে। এটা কি ওয়েব সাইটে দেখাচ্ছে না? সালাফি দাওয়াতের বিরুদ্ধে উম্মুক্ত যুদ্ধে রয়েছে আইসিস। আইসিস যুদ্ধ করেছে, জবাই করেছে এবং হত্যা করেছে আমাদের কয়েক জন বয়োজ্যেষ্ঠ ভাইদের মসুলে এবং সালাহ উদ দীন অঞ্চলে। সুতরাং আমি জানি না এ ধরনের কথা বার্তার উৎপত্তি কোথা থেকে হয়। আইসিস আমাদের উলামাদের কাফির সাব্যস্ত করে, সুতরাং তাদের (আইসিসের) কি মত সে সকল উলামাদের ব্যপারে? হয় তারা এই উলামাদের থেকে জ্ঞান আহরণ করবে, কেননা এ সকল আলেম তাদের দীনের মূলনীতির উপর রয়েছে। অথবা তারা (আইসিস) এ সকল উলামাদের থেকে নিজেদের মুক্ত করবে, আর সে ক্ষেত্রে আমরা কিভাবে তাদেরকে (অর্থাৎ আইসিসকে) আমাদের দাওয়াতের সাথে সম্পৃক্ত করব?

তাদেরকে আমাদের দাওয়াতের সাথে সম্পৃক্ত করবার নির্ণায়ক বিষয়গুলো কি কি? আইসিস হচ্ছে একটি বিদ’আতি আন্দোলন যার রাজনৈতিক ভূমিকা রয়েছে, যা অত্যন্ত বিপজ্জনক আর এরা রাফিদি শিয়াদের হাত থেকে দুই পবিত্র আশ্রয়স্থল মুক্ত করবার ব্যপারে কিছু করে না, সুতরাং আমি জানিনা তারা কিভাবে সুন্নাতের প্রতিনিধিত্ব করে। আইসিস একটি রাজনৈতিক আন্দোলন, যা কোন ধর্মীয় কিছু নয়, সালাফি আন্দোলন থেকে তা বহু দূরে। এটা একেবারেই পাগলামি, মারাত্মক ত্রুটি আর ভয়াবহ ভুল (আইসিসকে সালাফি আন্দোলন দাবী করা)। আইসিস নিতান্তই একটি রাজনৈতিক আন্দোলন এবং এর জন্ম খুব ঘোলাটে কারনে যা স্পষ্ট নয়।

আইসিসের নেতা এক অজানা ব্যক্তি যাকে কেউ চেনে না। এ একটি অত্যন্ত বড় এবং ব্যয়বহুল রাষ্ট্র আর এর কোন ইসলামিক দালিলিক ভিত্তি নেই। এরা বয়সে কম এবং গাধা প্রকৃতির। তাদের ফাতাওয়া কে দেয়? তাদের উলামারা কারা? এদের কারা স্বীকৃতি দেয়? তারা (আইসিস) বলে যে সকল মুসলিম দেশের সৈন্যরা ইসলাম ত্যাগকারী আর তারা আরও বলে যে কেউ মুসলিম দেশে রাষ্ট্রীয় তন্ত্রের ভিতর কাজ করবে হোক তা সেনাবাহিনীতে অথবা কোন প্রতিরক্ষা, সে ক্ষেত্রে তারা কাফির আর ধর্ম ত্যাগকারী!!!এই ফাতাওয়ার ব্যপারে তাদের সাথে কে একমত পোষণ করে? কে এই ধরনের ফাতাওয়া দেয়? সালাফি দাওয়াতের উলামাদের মধ্যে কে এ ধরনের কথা বার্তা বলে? সালাফি দাওয়াতের উলামারা আমাদের মাঝে রক্ত ক্ষরণ (যুদ্ধ, অশান্তি ইত্যাদি) এবং কাউকে কাফির ডাকবার বিষয়ে ভয় করবার ব্যপারটি স্থাপন করে দিয়েছেন। এগুলো ইমাম আহমেদ বিন হানবালের মত যিনি বলতেন, “আমি রক্ত ক্ষরণের বিষয় সমূহের ব্যপারে অত্যন্ত ভীত।” আইসিস শুধু হত্যা করে না, তারা নিজ হাতে জবাই করে, মানুষকে ভেড়ার মত হত্যা করে আর এতে তারা তাদের আনন্দ খুঁজে পায় – কিভাবে তা সালাফি দাওয়াত হতে পারে? (এসবকে সালাফি দাওয়াত দাবী করা) একটি চরম মিথ্যা এবং ভ্রান্তি। যদিও যে ব্যক্তির অন্তরে সালাফিদের প্রতি ঘৃণা এবং শত্রুতা রয়েছে সে ক্ষমতাধারী কর্তৃত্বে থাকা নেতাদের সালাফিদের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়ে দেবে সালাফিদের সাথে আইসিসের (মিথ্যা) সম্পর্ক দেখিয়ে। আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থিত।

 

(সূত্রঃ http://goo.gl/fOIFjJ )

 

>>>>>Special Courtesy:- dararqam.com<<<<<

Share this Post
Scroll to Top